সাকুরা উপভোগ করবেন লাখো পর্যটক

টোকিওতে ফুটতে শুরু করেছে চেরি ফুল, জাপানি ভাষায় যাকে বলা হয় সাকুরা। বসন্তের আগমনী বার্তা। সাদা আর হালকা গোলাপি ফুলগুলো লাখো পর্যটককে টেনে নিয়ে আসে এর সৌন্দর্য উপভোগে। শীতের ঘুম ভেঙ্গে নিজেকে উজার করে দিতে প্রস্তুত প্রকৃতি। আর বছরের সবচেয়ে সুন্দর সময় পার করার অপেক্ষায় জাপানিরা।


এবারে চেরি ফুটছে সময়ের কিছুটা আগেই। টোকিওর উইনো পার্কে আগামী সপ্তাহেই বসছে রঙের মেলা। জীবনের উষ্ণতা আর আনন্দ পাওয়ার কথা বললেন বন্ধুকে নিয়ে ঘুরতে আসা ৮০ বছরের মাসাও।

চেরি ফোটা মানেই বসন্ত এসে গেছে। এটি আমাকে প্রাণবন্ত করে তোলে। আমি মনে করি সবারই এখানে আসা উচিত জীবনের কষ্টগুলোকে কিছুটা সময় ভুলে থাকার জন্য। অন্যদিকে মায়ুমি বলছেন, অনেক মধুর স্মৃতি ফিরে আসে চেরি ফোটার এই সময়ে। 

অনেক বছর আগে হাসপাতাল থেকে আমার ছোট্ট মেয়েটিকে নিয়ে আমি এ পথ দিয়েই হেঁটে গিয়েছিলাম।

এখন কাজের প্রয়োজনে আমরা আলাদা থাকলেও বছরের এই দিনে সেই প্রিয় স্মৃতি বার বার ফিরে আসে।


ফিকে গোলাপি এই ফুল তার সৌন্দর্য নিয়েই সবার কাছে ধরা দেয়। বছরের এই সময়ে লাখো পর্যটক ভিড় করেন জাপানে। তবে অতীতে আবহাওয়ার পরিমাপক হিসেবেই দেখা হতো একে। 

কৃষি নির্ভর জাপানে চেরি ফোটা বেশ তাৎপর্যপূর্ণ ছিল। প্রকৃতির পরিবর্তন মাপা হতো এর মাধ্যমে। কেবল ফুলের বাহার নয়, এর চেয়েও বেশি কিছু ছিল কৃষকের কাছে। এক কথায় বলা যায়, কৃষকের বন্ধু সাকুরা।

পাঁচ দশকেরও বেশি সময় ধরে চেরি ফুলের গাছ বিনামূল্যে বিতরণ করছে সাকুরা ফাউন্ডেশন। কিছু কিছু ফেব্রুয়ারি কিংবা মার্চে ফুটলেও রঙের ঝাঁপি খুলে আসলে এপ্রিলের শুরুতে। 

Schick Hydro 5

Tags: , ,

One Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *