বাজার থেকে কেনা জিনিসেও থাকতে পারে করোনা, যেভাবে বাঁচবেন

করোনায় কাঁপছে সারা বিশ্ব। মারণ ভাইরাস করোনার থাবা বসিয়েছে বাংলাদেশেও। যার জেরে প্রতিদিনই বাড়ছে মৃত এবং আক্রান্তের সংখ্যা। এমন পরিস্থিতিতে অচেনা এই শত্রুকে প্রতিরোধ করতে হবে আপনাকেই। কারণ নিজেরা যতো বেশি সচেতন হব ততোই রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা গড়ে ওঠবে আমাদের মধ্যে। 

ওষুধ ও পণ্যদ্রব্য কিনতে বাড়ির বাইরে বের হতে হচ্ছে সাধারণ মানুষকে। কারণ আমাদের মতো তৃতীয় বিশ্বের গরীব দেশে অধিকাংশ মানুষেরই সামর্থ্য নেই মুদিখানা দ্রব্য থেকে শুরু করে বেশি করে সবজি আলু, চাল-ডাল ঘরে মজুত রাখবেন। আর এর ফলে কিছু মানুষকে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিস কিনতে বাড়ির বাইরে পা রাখতেই হচ্ছে।

এই অবস্থায় সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে বাজার করা এবং বাইরে থেকে জিনিসপত্র কিনে আনার পর আপনার এবং প্রিয়জনদের স্বার্থে অবশ্যই কিছু সুরক্ষা বিধি মেনে চলুন। যদি তাতে কিছুটা হলেও সংক্রমণের বিরুদ্ধে জয়লাভ করতে পারি আমরা। বাজার করার পর কি কি করণীয় সেই বিষয়ে আপনার জন্য রইল কিছু টিপস। সরকারি নির্দেশ অনুযায়ী মেনে চলুন এইসব স্বাস্থ্য সংক্রান্ত সতর্কতা বিধি।

১. বাজার করুন সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে। মনে রাখবেন, যখন জিনিসপত্র কিনবেন তখন আপনার এবং বিক্রেতার মধ্যে অন্তত দুই মিটার দূরত্ব বজায় থাকে। এতে সংক্রমণের আশঙ্কা কম থাকে।

২. বাড়ি এসে নির্দিষ্ট স্থানে রাখুন বাজারের ব্যাগ। এরপর অন্তত ২০ সেকেন্ড ভালো করে হ্যান্ড স্যানিটাইসার বা জীবাণুনাশক দিয়ে হাত ধুয়ে ফেলুন।

৩. এছাড়াও রান্নার আগে এবং পরে ভালো করে হাত ধুয়ে নিন।

৪. সব থেকে বড় বিষয় হলো, বাজারের দোকানে প্রায় সকলেই হাত দিয়ে বেছে দেখে শুনে কেনেন। এতে জীবাণুর সংক্রমণের ভয় থেকে যায়। ফলে বাজার থেকে সবজি কেনার পর তা কাটার আগে ভালো করে লবণ ও গরম পানিতে ধুয়ে নিন। এছাড়াও এই সময় খাবার ভালো করে সিদ্ধ ও ফুটিয়ে খাওয়া জরুরি।

৫. বাজারের ব্যাগ নির্দিষ্ট জায়গায় রাখুন। প্রতিদিনই বাজারের ব্যাগটি ধুয়ে ফেলার অভ্যাস করুন। নাহলে হিতে বিপরীত কিছু ঘটে যেতে পারে। 

৬. বাইরে থেকে ঘরে আসার পর অবশ্যই ভালো করে গোসল করে ফেলুন। এছাড়াও এই মুহূর্তে ক্রয় বিক্রয়ের ক্ষেত্রে কার্ডে পেমেন্ট এড়িয়ে চলুন। ক্যাশের কাজ চালান। অবশ্যই টাকা পয়সা লেনদেনের পর হাত অ্যালকোহল যুক্ত ভালো জীবাণুনাশক দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

৭. বাড়ির নির্দিষ্ট এক জনকে দিয়েই বাজার করান। এই সময় বাড়ির বয়স্ক সদস্যদের দিয়ে বাজার করা এড়িয়ে চলুন। কারণ বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে আমাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে আসে। এই অবস্থায় কেউ অসুস্থ হয়ে পড়লে তা যথেষ্ট চিন্তার বিষয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *