কাশি হলে যা খাবেন না

কাশির সিরাপ খাচ্ছেন বা ডাক্তার দেখিয়ে এন্টিহিস্টাসিন, ব্রঙ্কোডায়ালেটর খাচ্ছেন- তবুও কাশি কমছে না। রাত-বিরাতে শুকনো কাশির ধমকে ঘুমের দফারফা, কাশির কারণ যদি ঠাণ্ডা লাগা বা দূষণ হয়, তাহলে শুধু সিরাপে কাজ হবে না। কাশি হলে কিছু খাবারেও লাগাম দিতে হয়। শুধু মধু, আদা খেলেই কাশির ধমক থাকবে না।

কী সেই খাবার-
দুধ : কাশি হলে অনেকেই বলেন গরম দুধ খেতে। এতে গলার আরাম হয় ঠিকই, একই সঙ্গে দুধ ফুসফুস ও গলায় কিউকাস উৎপাদন বাড়িয়ে দেয়। কাশি হলে তাই দুধ এড়িয়ে চলাই ভালো।

পানিস্বল্পতা বা ডিহাইড্রেশন : কাশি হলে গলা শুকনো রাখা একেবারেই ঠিক নয়। তরল খাবার যেমন স্যুপ খেতে পারেন।

প্রক্রিয়াজাত খাবার : ব্রেড, পাস্তা, বেকড খাবার চিপস বা সুগারি ডেসার্ট খেলে কাশি বাড়ে। এর বদলে শাকসবজি ও পুষ্টিকর খাবারে মন দিন। ভিটামিন সি জাতীয় খাবার এ সময় বেশি বেশি খান।

ভাজাভুজি : কাশি হলে অনেক সময়ই মুখে রুচি থাকে না। ভাজা খাবার খেয়ে অনেকেই রুচি ফেরানোর চেষ্টা করেন। এতে কাশি আরও বাড়ে। ফাস্ট ফুড, জাঙ্ক ফুড পুরোপুরি ছাড়া ভালো।

টক জাতীয় ফল : এতে সাইট্রিক এসিড আছে, ফলে কাশি হলে না খাওয়াই ভালো। কারণ সাইট্রিক এসিড গলায় সংক্রমণ ঘটায় ও কফ বাড়িয়ে দেয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *